বর্তমান দুনিয়ায় মার্কেটিংয়ের অন্যতম প্রধান মাধ্যম সামাজিক যোগাযোগ সাইট। বিজ্ঞাপন এবং বিপণনের এই বিশাল বাজারের খবর এখন সবাই জানে। তাই বড় ছোট সব ব্র্যান্ড, ব্যাক্তি উদ্যোক্তা এবং সৃজনশীল ক্ষেত্রের মানুষেরা প্রতিনিয়ত এই মাধ্যমগুলো ব্যবহার করে নিজের কাঙ্খিত সংখ্যক মানুষের কাছে পৌঁছাতে মরিয়া হয়ে উঠেছে। এই বাস্তবতায় বিনামূল্যে হওয়া সত্ত্বেও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের বিপণন এখন অনেকটাই চ্যালেঞ্জিং হয়ে গেছে।

Source: The Balance Small Business

তাছাড়া সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো নিজেদের ব্যবসায়িক স্বার্থে সাধারণ পোস্ট বেশি সংখ্যক মানুষের কাছে প্রদর্শন করে না। অর্থ খরচ করে বুস্ট করা পোস্টের তুলনায় সাধারণ পোস্ট অতি নগন্য সংখ্যক মানুষের কাছে প্রদর্শিত হাওয়াই ব্র্যান্ডগুলো বিপাকে পড়েছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের পোস্ট নিয়ে তাদের নতুন করে ভাবতে হচ্ছে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের ইচ্ছাকৃত অ্যালগরিদম পরিবর্তন এবং বেশি সংখ্যক উদ্যোক্তা ও বিপণনকারীর উপস্থিতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের বিপণন জটিল এবং দুরূহ করে তুলেছে।

Source: Walls Streets Journal

এ অবস্থায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নিজের বা নিজের প্রতিষ্ঠানের কাঙ্খিত ব্র্যান্ডিং নিশ্চিত করতে পোস্ট বা কনটেন্ট তৈরি করার সময় আপনাকে আরো সৃজনশীল হতে হবে। এমন কনটেন্ট তৈরি করতে হবে যা সত্যিই মানুষের মধ্যে বিশেষভাবে প্রভাব বিস্তার করতে পারে। আপনার এই প্রচেষ্টা সার্থক করতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের জন্য আকর্ষণীয় এবং চমকপ্রদ কনটেন্ট তৈরি করার কিছু কৌশল আজকের নিবন্ধে আলোচনা করা হলো।

ব্রেকিং নিউজে দ্রুত সাড়া দিন

সময়টা এখন ভাইরালিটির। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের কল্যাণে সাম্প্রতিক সময়ে ঘটে যাওয়া সব বড় বড় ঘটনা মুহূর্তেই ভাইরাল হয়ে যায়। ভাইরাল হওয়ার পর তা নিয়ে সবাই লেখালেখি করে, আলোচনা করে। কিন্তু যে কোনো বিষয় সর্বপ্রথম যে বা যারা ভাইরাল করে তারাই সব সময় ইন্টারনেট দুনিয়ার নায়ক হয়ে থাকে।

আর এই নায়ক হওয়ার জন্য কোনো বিশেষ বিজ্ঞাপন দেওয়ার প্রয়োজন হয় না। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আপনার তৈরি করা পোস্টও এমন ভাইরাল হতে পারে এবং কোনো অর্থ খরচ করা ছাড়াই আপনি বিপুলসংখ্যক মানুষের কাছে পৌঁছাতে পারেন।

Source: Times of India

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দ্রুত অধিক মানুষের মনোযোগ আকর্ষণ করতে সাম্প্রতিক ঘটনা প্রবাহের উপর সব সময় নজর রাখুন। যেকোনো ব্রেকিং নিউজ বা চাঞ্চল্যকর ঘটনা আপনার কনটেন্টের মধ্যে নিয়ে আসুন।

তবে এক্ষেত্রে সময় সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। সঠিক সময়ে সাম্প্রতিক কোন আলোচিত বিষয় নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করতে পারলে আপনি নিশ্চিতভাবেই বিপুলসংখ্যক মানুষের মনোযোগ আকর্ষণ করতে সক্ষম হবেন। ব্রেকিং নিউজ দিয়ে থাকে এমন পত্রিকা এবং টেলিভিশন সব সময় পর্যবেক্ষণে রাখুন। আপনার কনটেন্ট বা পছন্দের বিষয় নিয়ে কাজ করে এমন ব্র্যান্ড বা ব্যক্তিদের সব সময় অনুসরণ করুন এবং ভাইরাল হতে পারে এমন কোনো ঘটনা ঘটা মাত্রই দ্রুত সে বিষয় নিয়ে বস্তুনিষ্ঠ এবং সঠিক তথ্য উপস্থাপন করুন।

দর্শক-শ্রোতাকে আলোচনায় অংশ নেয়ার সুযোগ দিন

অ্যাকোয়ারের প্রতিষ্ঠাতা বোগদান স্টেভানভিক বলেন, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমকে কনফারেন্স টেবিলের মতো বানিয়ে ফেলুন। আলোচনা হতে পারে এবং বিভিন্ন জন মত দিতে পারে এমন বিষয়ে কেবল আপনার মতামতের চেয়ে সবার অংশগ্রহণ নিশ্চিত করলে বেশি মানুষের সাড়া পাওয়া যায়। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের পোস্ট তৈরি করার সময় সাধারণ মানুষ তাদের সুচিন্তিত মতামত দিতে পারে এমন বিষয় নির্বাচন করুন।

Source: Neil Patel

আপনি চাইলে পোল বা ভোট দেওয়ার পদ্ধতি চালু করে কথোপকথন শুরু করতে পারেন। আপনি যে বিষয়ে প্রশ্ন উত্থাপন করেছেন, তাতে শুধু অন্যরা মতামত দেবে না, বরং আপনার পছন্দ নিয়ে আলোচনা করতে এবং পরস্পরের সাথে যুক্ত হতে পারবে।

তবে বিষয় নির্বাচনের ক্ষেত্রে আপনাকে অনেক বেশি সৃজনশীল হতে হবে। এমন বিষয় নির্বাচন করুন যাতে সত্যিই অন্যদের আগ্রহ আছে এবং মতামত দিতে উৎসাহী হয়।

পোস্ট আবেগময় করে তুলুন

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আবেগঘন পোস্ট সব সময় বেশি মানুষের মনোযোগ পায়, বেশি বেশি মন্তব্য আসে এবং বেশি বেশি শেয়ার হয়। ভেবে দেখুন সাম্প্রতিক সময়ে ফেসবুকে ভাইরাল হওয়া সবগুলো বিষয় মানুষকে খুব গভীরভাবে নাড়া দিয়েছে। হয় মানুষকে হাসিয়েছে, না হয় কাঁদিয়েছে।

Source: Jean Hailes

সুতরাং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট করার সময় বিষয়গুলো মানবিক এবং আবেগময় করে তুলুন। মানুষের কোমল হৃদয় স্পর্শ করার চেষ্টা করুন।

তবে বিষয় নির্বাচন এবং তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতার দিকে মনোযোগ রাখুন। হালকা কোনো বিষয়কে অতিরিক্ত আবেগময় করে উপস্থাপন করা বা কোনো ধর্ম বা জাতিগোষ্ঠীর দুঃখজনক ঘটনাকে হাস্যকরভাবে উপস্থাপন করবেন না।

লাইভ ভিডিও যুক্ত করুন

লাইভ ভিডিও বর্তমানে সাধারণ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহারকারীদের কাছে খুবই আকর্ষণীয় বিষয়। তাই বড় বড় ব্র্যান্ড বিভিন্ন ইভেন্ট এবং বিষয় নিয়ে লাইভ ভিডিও তৈরি করে, যা খুব দ্রুত বিপুলসংখ্যক মানুষের কাছে পৌঁছে যায়। সুতরাং আপনিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের পোস্ট বেশি সংখ্যক মানুষের কাছে পৌঁছাতে লাইভ ভিডিও ব্যবহার করতে পারেন।

Source: Stree News

তাই বলে লাইভ ভিডিও চলাকালীন সময়ে আপনাকে বিপুলসংখ্যক মানুষের কাছে পৌঁছাতে হবে, বিষয়টি এমন নয়। সাধারণত লাইভ ভিডিও দেখার ব্যাপারে সাধারণ মানুষ বেশি আগ্রহী হয়ে থাকে। কেননা লাইভ ভিডিওতে তথ্য সংশোধন এবং সংযোজন করার সুযোগ থাকে না। তাই মানুষ অবচেতনভাবে সাধারণ পোস্টের তুলনায় লাইভ ভিডিও বেশি বিশ্বাসযোগ্য বলে মনে করে। এবং লাইফ শেষ হয়ে যাওয়ার পরও দীর্ঘ সময় ধরে বিভিন্ন জনের ওয়ালে তা শেয়ার হতে থাকে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নিজের বা নিজের ব্র্যান্ডের পরিচিতি বাড়ানোর জন্য সব সময় সাম্প্রতিক ট্রেন্ড বা প্রবনতার দিকে নজর রাখুন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে খুব দ্রুত নতুন নতুন ট্রেন্ড বা প্রবণতা সৃষ্টি হয়। আবার খুব দ্রুতই তা হারিয়ে যায়। আপনাকে এই ট্রেন্ড অনুসরণ করতে হবে এবং ট্রেন্ড হারিয়ে যাওয়ার আগেই নিজের মার্কেটিং নিশ্চিত করতে হবে।

Feature Image: Walls Streets Journal

Leave a comment