আপনি যদি সত্যিই অনলাইনে ক্রেতা দর্শক বাড়াতে চান, তবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের সুযোগ সুবিধা আপনাকে গ্রহণ করতেই হবে। আজকের দিনে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ইন্টারনেটে সর্বব্যাপী বিস্তার লাভ করেছে। সুতরাং এই বিস্তৃত ইন্টারনেট জগতে মার্কেটিং করে আপনি লক্ষ লক্ষ মানুষের কাছে পৌঁছাতে পারেন। কিন্তু তার জন্য সঠিক ক্রেতা দর্শক চেনার উপায় জানতে হবে।

Source: PNS Technology Pvt Ltd

নিজের ব্র্যান্ড বা পণ্যের জন্য সঠিক ক্রেতা দর্শক চিনতে পারলে আপনি বিনামূল্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করে লক্ষ টাকার বিপণন খরচ কমাতে সক্ষম হবেন। আবার কাঙ্খিত বিপণন নিশ্চিত করতে পারবেন। তাই আপনাকে সহযোগিতা করতে আজকের নিবন্ধে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিপণনের কয়েকটি বিশেষ টুলস নিয়ে আলোচনা করা হল। এই টুলসগুলো আপনার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম বিপণন আরও সহজ করে দিবে।

ভাইরাল ট্যাগ (Viraltag)

একই বিষয় নিয়ে ভিন্ন ভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভিন্ন ভিন্ন ছবি এবং পোস্ট ক্রিয়েট করা সত্যিই যথেষ্ট সময় সাপেক্ষ ব্যাপার। আপনার এই সময় বাঁচাতে এবং কাজটি সহজ করতে এসেছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম টুলস ভাইরালট্যাগ। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহারের এই ইন্টারনেট টুলস আপনাকে একসাথে অনেক কাজ করার সুযোগ দেয়। এই টুলস ব্যাবহার করে একসাথে একাধিক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম, যেমন ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম, পিন্টারেস্ট, টুমলার এবং লিঙ্কড ইনে ছবি এবং লেখা পোষ্ট করা যায়।

Source: Lifehack

এই টুলসে আপনি আরো পাবেন একটি চমৎকার মার্কেটিং ক্যালেন্ডার, যা দীর্ঘমেয়াদে আপনার বিপণন বিশ্লেষণ করতে কাজে আসবে। এছাড়া যারা ইনস্টাগ্রাম এবং পিন্টারেস্ট ব্যবহার করে বিপণন করে থাকেন তাদের জন্য এই ক্যালেন্ডার বিশেষ সুবিধা দিয়ে থাকে। এই টুলস ব্যবহার করলে আপনি একটি কনটেন্ট লাইব্রেরি তৈরি করতে পারবেন এবং ক্যাটাগরি অনুযায়ী পোস্ট শিডিউল করতে পারবেন। যা আপনার বিপণন কৌশল আরো উন্নত করতে এবং অধিক সংখ্যক মানুষের কাছে পৌঁছাতে সহযোগিতা করবে।

তবে এই টুলস ব্যবহার করতে হলে আপনাকে মাসে মাসে কিছু অর্থ গুনতে হবে। সর্বনিম্ন মাসিক ২৯ ডলার থেকে শুরু করে আপনার চাহিদা অনুযায়ী প্যাকেজ কিনে ব্যবহার করতে পারেন।

ক্যানভে (Canva)

আপনার ব্র্যান্ড ইন্টারনেটে আরও চমৎকার এবং যুগোপযোগীভাবে উপস্থাপন করতে চাইলে এই টুলটি ব্যবহার করতে পারেন। এই গ্রাফিক্স টুলস ব্যবহার করা যেমন সহজ তেমনি এখানে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে রয়েছে অসংখ্য চমকপ্রদ টিউটোরিয়াল।

Source: Lifehack

যেমন: ব্র্যান্ড কিট তৈরি করা, ব্র্যান্ডিংয়ের কৌশল নির্ধারণ করা, প্রেজেন্টেশন তৈরি করা, ব্রান্ড এবং ডিজাইনের জন্য রং সমন্বয় করা, সঠিক ফন্ট নির্বাচন করা, হোয়াইট স্পেস নিয়ে কাজ করা, চমৎকার শিরোনাম এবং ট্যাগ নির্বাচন করা ইত্যাদি বিষয়ের সহজ এবং সময় উপযোগী টিউটোরিয়ালসহ আরো অনেক কিছু। সুতরাং এই টুলস ব্যবহার করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের কনটেন্ট ডিজাইনের বিভিন্ন দিক নিয়ে আপনি বিস্তারিত শিখতে পারবেন এবং তা প্রয়োগ করে যথাযথ মার্কেটিং নিশ্চিত করতে পারন।

বাফার (Buffer)

এই অনলাইন টুলস আপনার অনলাইন বিপণনের সময় অনেকাংশে বাঁচিয়ে দিবে। এই টুলস ব্যবহার করে আপনি এক জায়গায় বসে একাধিক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পোস্ট সিডিউল করতে পারবেন, প্রকাশ করতে পারবেন, এমনকি মার্কেটিংয়ের বিভিন্ন বিষয় বিশ্লেষণ করতে পারবেন।

Source: Lifehack

এই টুলস ব্যবহার করতে কোনো অর্থ খরচ হয় না। যে কেউ যেকোনো জায়গা থেকে এই টুলস ব্যবহার করতে পারে। এই টুলসের সবচেয়ে বড় সুবিধা হলো ভিন্ন ভিন্ন পোস্ট ভিন্ন ভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মাত্র একটি ক্লিকের মাধ্যমেই সিডিউল করা সম্ভব। যার ফলে আপনি উপস্থিত না থাকলেও আপনার দর্শকরা নির্দিষ্ট সময় পরপর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আপনার প্রচার দেখতে পাবে।

এমনকি এই টুলস ব্যবহার করে একই বা ভিন্ন ভিন্ন মেসেজ একাধিক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের ইনবক্সে দ্রুত পাঠানো যায়। আপনি চাইলে ইতিমধ্যে পোস্ট করা একাধিক সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের কনটেন্ট এডিট করতে পারেন, ছবি এবং ভিডিও যোগ করতে পারেন। ফলে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আপনার বিপণন আরও সহজ এবং ফলপ্রসূ হবে।

এডগার (Edgar)

কখনো কখনো বিজ্ঞাপনের জন্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এমন কিছু পোস্ট করা হয় যা সাধারণ কনটেন্টের চেয়ে বেশি দর্শকের কাছে পৌঁছানোর দাবি রাখে। কিন্তু সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের নিয়ম অনুসারে এক পোস্ট বেশিক্ষন ব্যবহারকারীদের হোমপেজে দেখায় না। এক্ষেত্রে এডগার আপনাকে সহযোগিতা করতে পারে। এডগার নিশ্চিত করবে আপনার পোস্ট সর্বোচ্চ সংখ্যক মানুষের কাছে পৌঁছাচ্ছে। এমনকি আপনার পোস্ট বারবার নতুন দর্শকের কাছে নিয়ে যাবে।

Source: Lifehack

এই টুলস ব্যবহার করে আপনি কন্টেন্টের লাইব্রেরি তৈরি করুন এবং বিভিন্ন ক্যাটাগরি অনুযায়ী সাজান। তারপর বাকি দায়িত্ব এডগারের উপর ছেড়ে দিন। গুরুত্বপূর্ণ কনটেন্ট পুনরায় পোস্ট করার ব্যাপারে আপনাকে আর চিন্তা করতে হবে না। কেননা এডগার আপনার পুরনো পোস্টগুলো বারবার নতুন দর্শকের কাছে নিয়ে যাবে এবং আপনার কাঙ্খিত বিপণন নিশ্চিত করবে।

গেট স্পার্কাল (Get Sparkle)

আপনি যদি সত্যিই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অধিক মনোযোগ পেতে চান, তাহলে অবশ্যই আপনার গেট স্পার্কাল ব্যবহার করা উচিত। এই টুলস ইন্টারনেট ব্যবহারকারী এবং আপনার ভক্তদের পোস্ট করা বিভিন্ন বিষয় এবং তাদের মনোযোগের তথ্য সংগ্রহ করে এবং সেই তথ্য কাজে লাগিয়ে আপনার যথাযথ বিপণন নিশ্চিত করে।

Source: Lifehack

এই টুলস ব্যবহার করে আপনি ১০টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থেকে তথ্য সংগ্রহ করতে পারবেন, এবং তা বিশ্লেষণ এবং সমন্বয় করার মাধ্যমে নিজের মার্কেটিংয়ে কাজে লাগাতে পারবেন। এই টুলসের টেমপ্লেট খুবই দৃষ্টিনন্দন এবং সহজে ব্যবহারযোগ্য।

ব্যবহারকারীরা সামাজিক অনুষ্ঠান, লাইভ অনুষ্ঠান, অফিস প্রদর্শন এবং বিভিন্ন প্রতিযোগিতার জন্য স্পার্কাল ব্যবহার করেন। সুতরাং আপনিও চমৎকার এই টুলসের সহযোগিতা নিয়ে নিজের ব্র্যান্ডের কাঙ্খিত বিপণন নিশ্চিত করতে পারেন।

Feature Image: PNS Technology Pvt Ltd

Leave a comment